আজ-  ,


সময় শিরোনাম:
«» কুলাউড়ায় কবি সাহিত্যিক ও লেখক পরিষদের জেলা নেতৃবৃন্দকে সংবর্ধনা «» সুস্থ ও নিরাপদ ব্যাংকিং ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় ১০ দফা সুপারিশ টিআইবির «» ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর কর্তৃক তদারকি অভিযান «» নওগাঁ সাপাহারে ফায়ার সার্ভিসের অগ্নিনির্বাপক মহড়া অনুষ্ঠিত। «» নওগাঁয় সিভিল সার্জনের সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। «» আসুন সবাই হাঁটা ও সাইকেলে ফিরি, বাসযোগ্য প্রকৃতিবান্ধব নগর গড়ি’—শেখ আরিফ «» ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) «» পর্তুগালে বিদায়ী রাষ্ট্রদূতকে আ.লীগের সংবর্ধনা ★ «» রাজনগরে কুয়েত প্রবাসীর উপর সন্ত্রাসী হামলা «» বৈরাগী-সিংগেরকাছ বাজার রাস্তা সংস্কারের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

ওসমানীনগরের কাজী আব্দুল আহাদের ‘চ্যালেঞ্জ’

ওসমানীনগরের তাজপুরে ইউনিয়নে কোনো বাল্য বিয়ে হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা নিকাহ ও তালাক রেজিস্ট্রার কাজী আব্দুল আহাদ। তিনি বলেছেন- একটি পক্ষ ষড়যন্ত্রমুলক ভাবে তার কর্মকান্ডকে বিতর্কিত করতে এই অপপ্রচারে নেমেছে।
ওসমানীনগরের পাশ্ববর্তী দয়ামীর ইউনিয়নের নিয়মিত নিকাহ ও তালাক রেজিস্ট্রার কাজী আব্দুল আহাদ। তাজপুর ইউনিয়নের নিয়মিত নিকাহ ও তালাক রেজিস্ট্রারের পদ শূণ্য হওয়ার পর গত ২০১৯ সালের ৮ আগষ্ট থেকে অতিরিক্ত দায়িত্বে রয়েছেন। এরপর থেকে তিনি দয়ামীর ইউনিয়নের মতো পাশ্ববর্তী তাজপুর ইউনিয়নে স্বনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন।
তাজপুর ও গোয়ালাবাজার ইউনিয়নে স্থায়ী নিকাহ ও তালাক রেজিস্ট্রার নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। এই অবস্থায় একটি কুচক্রী মহল তাজপুর ইউনিয়নের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী আব্দুল আহাদকে বিতর্কিত করতে চাইছে। যেখানে বাল্য বিয়ের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি সেখানে বাল্য বিয়ের কথা বলে কাজী আব্দুল আহাদকে হেনস্থা করাই তাদের মুল উদ্দেশ্য।
এসব অপপ্রচারকারীদের ‘চ্যালেঞ্জ’ ছুড়ে দিয়েছেন কাজী আব্দুল আব্দুল আহাদ। তিনি জানিয়েছেন- ‘মজলিসপুর ও কাশিপাড়ায় দুটি বাল্য বিয়ের কথা বলে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে। অথচ এই দুটি বিয়ে সম্পর্কে তাজপুর কাজী অফিস সংশ্লিষ্ট নয়। এ ব্যাপারে প্রশাসনের তরফ থেকে তদন্ত করা হলেও কোনো সত্যতা মিলেনি।’
কাজী আব্দুল আহাদ জানিয়েছেন- ২০০২ সাল থেকে তিনি দয়ামীর ইউনিয়নে নিয়মিত কাজী হিসেবে রয়েছেন। তাদের সজাগ দৃষ্টি ও বিচক্ষনতার কারনে ২০১৬ সালের ৩০ শে আগষ্ট ওসমানীনগর উপজেলাকে বাল্য বিয়ে মুক্ত এলাকা ঘোষনা করা হয়। ওসমানীনগরকে বাল্য বিয়ে মুক্ত এলাকার সুনাম ধরে রাখতে তিনি সহ দায়িত্বপ্রাপ্ত কাজীরা সতর্ক রয়েছেন। কিন্তু একটি মহল এই সুনামে আঘাত করে ফায়দা লুটতে চাচ্ছে বলে দাবি করেন কাজী আব্দুল আহাদ।