আজ-  ,


সময় শিরোনাম:
«» মৌলভীবাজারে মা ও শিশুদের জন্য শেখ রাসেল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প «» মৌলভীবাজারে আত্ম প্রকাশ করলো ভিন্ন ধারার অনলাইন নিউজ পোর্টাল আইন নথি। «» মৌলভীবাজারে বাল্য বিয়েতে ভূয়া জন্ম সনদ «» নওগাঁর ঐতিহ্যবাহী প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার অবশেষে খুলে দেয়া হলো। «» নোয়াখালীতে ভয়াবহ অগ্নকান্ড «» বেগমগঞ্জে শিশু ধর্ষনচেষ্টায় শিক্ষক গ্রেফতার «» নওগাঁ সাপাহারে হাটবার করে ইউনিয়ন পরিষদ সমূহে পুলিশী সেবা প্রদান। «» টিআইবি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি «» টিআইবি সংশোধিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি «» শ্রীমঙ্গলে নবজাগরণ ও প্রজেক্ট ওয়ান মিলিয়ন প্লান্টেশনের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি

বঙ্গবন্ধু’র ৭ মার্চের ভাষনকে ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ায় আলোচনা সভা

স্টাফ রিপোর্টার ঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭
মার্চের ভাষণকে ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে
জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো। ওই ভাষণটি
মেমোরি অফ দা ওয়ার্ল্ড  ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে যুক্ত করেছে ইউনেস্কো।
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষনকে ইউনেস্কোর বিশ্ব প্রামান্য ঐতিহ্যর সীকৃতি
পাওয়ায় ১০ নভেম্বর শ্রক্রবার সন্ধ্যায়
দৈনিক মৌলভীবাজার বার্তা, দৈনিক বাংলার দিন পত্রিকার আয়োজনে ও দৈনিক
বাংলার দিন, দৈনিক মৌলভীবাজার বার্তা, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি  বকসি
ইকবাল আহমদের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক মাহমুদুর রহমানের পরিচালনায়, আলোচনা
সভা অনুষ্টিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন
মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, বিশেষ অতিথি
হিসেবে বক্তব্য রাখেন,  মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক
সৈয়দ নওশের আলী খোকন, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের উপাধাক্ষ্য ড. ফজলুল আলী,
নাট্যকার ও লেখক আব্দুল মতিন, দৈনিক  যুগান্তর মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
হুসাইন  বিশিষ্ট সাংবাদিক আতাউর রহমান চৌধুরী, আব্দুল কুদ্দুুছ, মিজানুর
রহমান শিপু। এড. ভুষনজিৎ চৌধুরী মিলন, কাজল দাশ।
সাংবাদিক দুরুদ আহমদ, মেরাজ চৌধুরী, এমদাদুল হক, আব্দুল কালাম প্রমুখ। ,
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিছবাহুর রহমান বলেন, ইউনেস্কোর সীকৃতির মধ্য
দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাষনটি আন্তর্জাতিক সম্মান লাভ করেছে ফলে এ নিয়ে কোনো
দ্বন্দের অবকাশ থাকতে পারে না। আমাদের সকলের উচিৎ বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চের
ভাষনের মর্মবানীটি স্ব স্ব অবস্থান থেকে সকলের নিকট থেকে তুলে ধরে। এবং
পাঠ্য পুস্তকে এর তাৎপর্য অন্তর্ভুক্ত করা। বক্তারা বলেন,  ‘‘এই
স্বীকৃতির মাধ্যমে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়ে গেল? এটা শুধু বঙ্গবন্ধুর
স্বীকৃতি নয়, দেশের জন্যও এক বড় স্বীকৃতি । এখন এটাকে আরো ছড়িয়ে দিতে
হবে? বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নেতা ছিলেন না, তিনি বিশ্বের নির্যাতিত
নিপীড়িত মানুষের নেতা ছিলেন? ২০১৫ সালে কানাডার একজন অধ্যাপক সারা
বিশ্বের ঐতিহাসিক ভাষণ নিয়ে একটা গ্রস্থ প্রকাশ করেছিলেন?
সেখানেও বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণ ছিল? তখন অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতি পেলেও এবার
পেলো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ।” তারা ইউনেস্কোর সীকৃতি কে অভিনন্দন জানান।